এলার্জি ঔষধ এর নাম বাংলাদেশ

আপনি এলার্জি ঔষধ এর নাম বাংলাদেশ খুঁজতে ক্লান্ত? এদিকে চুলকানি ও চুলকানির অবস্থা কি খারাপ? কিন্তু, কোনো অবস্থাতেই কি এলার্জি দূর করা যাবে না? আজকের পোস্টে, আমি চোখের এলার্জির ঔষধ, ওরাল এলার্জির ঔষধ, বাচ্চাদের এলার্জির ঔষধ এবং এলার্জি ট্যাবলেটগুলির নাম নিয়ে আলোচনা করব। পোস্টটি ভালোভাবে পড়ার পর এলার্জি সংক্রান্ত সকল সমস্যা সমাধান করা হবে। তাই এই পার্টি শুরু করা যাক।

এলার্জি ঔষধ এর নাম বাংলাদেশ

এলার্জি ঔষধ এর নাম

এলার্জি ঔষধ এর নাম বাংলাদেশ সম্পর্কে জেনে নিন। এলার্জির চিকিত্সার জন্য ব্যবহৃত একটি ওষুধ এলার্জি ওষুধ হিসাবে পরিচিত। এটি একটি অ্যান্টিহিস্টামিন, যার মানে এটি হিস্টামিন প্রতিরোধ করে কাজ করে, অ্যালার্জেনের প্রতিক্রিয়ায় শরীর দ্বারা নির্গত একটি রাসায়নিক। এটি এলার্জির উপসর্গ যেমন হাঁচি, নাক দিয়ে পানি পড়া, চুলকানি এবং চোখের পানি দূর করে।

  • ন্যাসিভিওন এলার্জি‌ ১২০ এম জি ট্যাবলেট (Nasivion Allergy 120 MG Tablet)
  • অ্যালারনেক্স ১২০ এম জি ট্যাবলেট (Alernex 120 MG Tablet)
  • গ্লেনফাইন ১২০ এম জি ট্যাবলেট (Glenfine 120 MG Tablet)
  • হিস্টাকাইন্ড ১২০ এম জি ট্যাবলেট (Histakind 120 MG Tablet)

চোখের এলার্জি ঔষধ এর নাম

চোখের এলার্জি ঔষধ এর নাম

চোখের এলার্জি ঔষধ এর নাম বাংলাদেশ সম্পর্কে জেনে নিন। চোখের অ্যালার্জি চোখের প্রদাহ বা জ্বালার কারণে চোখ ফোলা এবং লাল হয়ে যায় এবং ধুলো, পরাগ, ধুলো মাইট ইত্যাদি অ্যালার্জির কারণে হয়। এগুলি অ্যালার্জেন হিসাবে পরিচিত। হাঁপানি, খড় জ্বর, ত্বকের অ্যালার্জি (উদাহরণস্বরূপ, একজিমা), এবং আরও অনেক কিছু। শিশু-কিশোরদের চোখের অ্যালার্জিতে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

  • লাইফ্লক্স ট্যাবলেট (Lyflox O Tablet)

স্কিন এলার্জি ঔষধ বাংলাদেশ

স্কিন এলার্জি ঔষধ এর নাম বাংলাদেশ সম্পর্কে জেনে নিন। ত্বকের অ্যালার্জি বর্তমানে মানুষের জন্য হুমকিস্বরূপ। কারণ জনসংখ্যার প্রায় 30% ত্বকের অ্যালার্জিতে ভোগে। তারা চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে হাজার হাজার টাকা খরচ করে ত্বকের অ্যালার্জির চিকিৎসায়। এবং এখন ত্বকে অ্যালার্জির প্রমাণ রয়েছে। অনেক মানুষ এই সমস্যা দ্বারা প্রভাবিত হয়. প্রত্যেকেরই ত্বকের অ্যালার্জির একটি অনন্য সেট রয়েছে।

  • ন্যাসিভিওন এলার্জি‌ ১২০ এম জি ট্যাবলেট (Nasivion Allergy 120 MG Tablet)
  • অ্যালারনেক্স ১২০ এম জি ট্যাবলেট (Alernex 120 MG Tablet)
  • গ্লেনফাইন ১২০ এম জি ট্যাবলেট (Glenfine 120 MG Tablet)
  • হিস্টাকাইন্ড ১২০ এম জি ট্যাবলেট (Histakind 120 MG Tablet)
আরো পড়ুনঃ  পিজি হাসপাতালের ডাক্তারদের তালিকা

এলার্জি ঔষধ এর নাম হোমিওপ্যাথি

হোমিওপ্যাথি এলার্জি ঔষধ এর নাম বাংলাদেশ সম্পর্কে জেনে নিন। হোমিওপ্যাথিতে অ্যালার্জির চিকিৎসায় ব্যবহৃত কিছু সাধারণ ওষুধের নাম হল:

  • অ্যালোস নোস্ট্রাম: এটি সব ধরনের অ্যালার্জির জন্য একটি সাধারণ ওষুধ। এটি হাঁচি, সর্দি, কাশি, চোখ জ্বালা, এবং ফুসকুড়ি সহ বিভিন্ন লক্ষণগুলির উপশম করতে পারে।
  • অরনিথোলাক্স: এটি ফুলের পরাগ, ধূলা, এবং ধুলোবালি থেকে অ্যালার্জির জন্য উপকারী। এটি হাঁচি, সর্দি, কাশি, এবং চোখ জ্বালার মতো লক্ষণগুলির উপশম করতে পারে।
  • ক্যালি কার্বোনিকা: এটি শীতকালে বা ঠান্ডা আবহাওয়ায় অ্যালার্জির জন্য উপকারী। এটি হাঁচি, সর্দি, কাশি, এবং চোখ জ্বালার মতো লক্ষণগুলির উপশম করতে পারে।
  • ন্যাট্রাম কার্বোনিকা: এটি অ্যালার্জির জন্য উপকারী যা খাবার, পোকামাকড়, বা নির্দিষ্ট পদার্থের সংস্পর্শে আসলে হয়। এটি হাঁচি, সর্দি, কাশি, এবং চোখ জ্বালার মতো লক্ষণগুলির উপশম করতে পারে।
  • হিপারিকাম পারফুরাম: এটি সূর্যের আলো থেকে অ্যালার্জির জন্য উপকারী। এটি ত্বকে ফুসকুড়ি, চুলকানি, এবং জ্বালাভাব উপশম করতে পারে।
  • রাস টক্স: এটি পোকামাকড়ের কামড় বা দংশন থেকে অ্যালার্জির জন্য উপকারী। এটি ত্বকে ফুসকুড়ি, চুলকানি, এবং জ্বালাভাব উপশম করতে পারে।

এই ওষুধগুলি একটি অভিজ্ঞ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের দ্বারা নির্ধারিত হওয়া উচিত। কারণ, প্রতিটি রোগীর লক্ষণগুলি আলাদা হতে পারে এবং তাই তাদের জন্য উপযুক্ত ওষুধও আলাদা হতে পারে।

হোমিওপ্যাথিতে অ্যালার্জির চিকিৎসায়, ওষুধগুলি রোগীর ব্যক্তিগত লক্ষণগুলির উপর ভিত্তি করে নির্ধারিত হয়। ওষুধগুলি রাসায়নিকভাবে বিশুদ্ধ উপাদানগুলির খুব ছোট মাত্রায় প্রস্তুত করা হয়। এগুলি সাধারণত দ্রবণ, ট্যাবলেট, বা ক্যাপসুল আকারে নেওয়া হয়।

হোমিওপ্যাথি অ্যালার্জির লক্ষণগুলির উপশমে কার্যকর হতে পারে। তবে, এটি একটি দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসা প্রক্রিয়া। এটি মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে হোমিওপ্যাথি কোনও রোগের চিকিৎসা করে না। এটি শুধুমাত্র লক্ষণগুলির উপশম করে।

মুখের এলার্জি ঔষধ এর নাম

মুখের এলার্জি ঔষধ এর নাম

মুখের এলার্জি ঔষধ এর নাম বাংলাদেশ সম্পর্কে জেনে নিন।

  • ন্যাসিভিওন এলার্জি‌ ১২০ এম জি ট্যাবলেট (Nasivion Allergy 120 MG Tablet)
আরো পড়ুনঃ  পিউটন সিরাপ এর উপকারিতা

নাকের এলার্জি ঔষধ এর নাম

নাকের এলার্জি ঔষধ এর নাম

নাকের এলার্জি ঔষধ এর নাম বাংলাদেশ সম্পর্কে জেনে নিন।

  • ন্যাসিভিওন এলার্জি‌ ১২০ এম জি ট্যাবলেট (Nasivion Allergy 120 MG Tablet)

এলার্জি ঔষধ এর নাম স্কয়ার

Cetirizine

  • Alatrol (স্কয়ার)

Loratadine

  • Loratin (স্কয়ার)

Fexofenadine

  • Fexo (স্কয়ার)

এলার্জি কমানোর কিছু খাবার

এলার্জি হল একটি অটোইমিউন প্রতিক্রিয়া যা শরীরের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে স্বাভাবিক উপাদানগুলিকে ক্ষতিকারক হিসাবে ভুল বোঝার ফলে ঘটে। এলার্জি বিভিন্ন ধরনের হতে পারে, যার মধ্যে রয়েছে খাদ্য, পশু, ফুলের রেণু এবং ধূলিকণার প্রতি সংবেদনশীলতা।

খাদ্য অ্যালার্জি হল সবচেয়ে সাধারণ ধরণের অ্যালার্জি। এই ধরনের অ্যালার্জির লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে শ্বাসকষ্ট, চুলকানি, ফোলাভাব এবং বমি বমি ভাব।

খাদ্য অ্যালার্জি কমাতে বা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করার জন্য কিছু খাবার রয়েছে। এই খাবারগুলি আপনার ইমিউন সিস্টেমকে শক্তিশালী করতে এবং অ্যালার্জির লক্ষণগুলি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

এলার্জি কমানোর জন্য কিছু খাবার

  • ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার

ভিটামিন সি হল একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা আপনার ইমিউন সিস্টেমকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবারগুলির মধ্যে রয়েছে লেবু, কমলা, ব্রোকলি, টমেটো এবং গোলমরিচ।

  • ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার

ম্যাগনেসিয়াম হল একটি খনিজ যা আপনার ইমিউন সিস্টেমকে নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। ম্যাগনেসিয়াম সমৃদ্ধ খাবারগুলির মধ্যে রয়েছে বাদাম, বীজ, সবুজ শাকসবজি এবং ফল।

  • প্রোবায়োটিক সমৃদ্ধ খাবার

প্রোবায়োটিক হল স্বাস্থ্যকর ব্যাকটেরিয়া যা আপনার অন্ত্রের স্বাস্থ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। প্রোবায়োটিক সমৃদ্ধ খাবারগুলির মধ্যে রয়েছে দই, টক দই, কিমচি এবং সাউরক্রাউট।

  • ওমেগা-3 ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবার

ওমেগা-3 ফ্যাটি অ্যাসিডগুলি প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে যা অ্যালার্জির লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করতে পারে। ওমেগা-3 ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ খাবারগুলির মধ্যে রয়েছে মাছ, বাদাম এবং বীজ।

  • হলুদ

হলুদ হল একটি মশলা যা কারকুমিন নামে একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। কারকুমিন প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে যা অ্যালার্জির লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করতে পারে।

  • আনারস

আনারস হল একটি ফল যা ব্রোমালিন নামে একটি এনজাইম সমৃদ্ধ। ব্রোমালিন প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে যা অ্যালার্জির লক্ষণগুলিকে আরও খারাপ করতে পারে।

এলার্জি কমানোর জন্য উপরে উল্লিখিত খাবারগুলি ছাড়াও, আপনাকে আপনার খাদ্য থেকে অ্যালার্জেনগুলি এড়িয়ে চলতে হবে। আপনার যদি কোনও খাবারের প্রতি অ্যালার্জি থাকে তবে সেই খাবারটি এড়িয়ে চলা গুরুত্বপূর্ণ।

আরো পড়ুনঃ  বাচ্চাদের চোখে কেতুর হলে করণীয়

আপনি যদি অ্যালার্জিজনিত সমস্যার সম্মুখীন হন তবে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা গুরুত্বপূর্ণ। ডাক্তার আপনার অ্যালার্জির কারণ নির্ণয় করতে এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসার পরামর্শ দিতে পারেন।

এলার্জি দূরকরণের ঘরোয়া সব উপায়

এলার্জি একটি সাধারণ স্বাস্থ্য সমস্যা যা শরীরের প্রতিরোধ ব্যবস্থার অতিরিক্ত প্রতিক্রিয়ার কারণে হয়। এলার্জির লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে হাঁচি, সর্দি, চোখ চুলকানি, নাক বন্ধ হয়ে যাওয়া, ত্বকের ফুসকুড়ি ইত্যাদি।

অ্যালার্জির চিকিৎসার জন্য অনেকগুলি ওষুধ পাওয়া যায়, কিন্তু কিছু ঘরোয়া উপায়ও রয়েছে যা অ্যালার্জির লক্ষণগুলি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

ত্বকের অ্যালার্জির জন্য ঘরোয়া উপায়

  • অ্যালোভেরা জেল: অ্যালোভেরা জেল একটি প্রাকৃতিক ঔষধ যা ত্বকের অ্যালার্জির লক্ষণগুলি কমাতে সাহায্য করে। অ্যালোভেরা জেল সরাসরি অ্যালার্জির আক্রান্ত স্থানে লাগান।
  • টি-ট্রি অয়েল: টি-ট্রি অয়েল একটি অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল তেল যা ত্বকের অ্যালার্জির লক্ষণগুলি কমাতে সাহায্য করে। টি-ট্রি অয়েল 10% মিশ্রিত জল দিয়ে আক্রান্ত স্থানে স্প্রে করুন।
  • নারকেল তেল: নারকেল তেল একটি প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার যা ত্বকের অ্যালার্জির লক্ষণগুলি কমাতে সাহায্য করে। নারকেল তেল আক্রান্ত স্থানে হালকাভাবে ম্যাসাজ করুন।
  • আপেল সিডার ভিনিগার: আপেল সিডার ভিনিগারে অ্যাসিটিক অ্যাসিড থাকে যা ত্বকের চুলকানি কমাতে সাহায্য করে। একটি কাপ পানিতে এক চা চামচ আপেল সিডার ভিনিগার মিশিয়ে আক্রান্ত স্থানে স্প্রে করুন।

চোখের অ্যালার্জির জন্য ঘরোয়া উপায়

  • গোলাপজল: গোলাপজল একটি প্রাকৃতিক ঔষধ যা চোখের অ্যালার্জির লক্ষণগুলি কমাতে সাহায্য করে। একটি কাপ গোলাপজলে এক চা চামচ মধু মিশিয়ে দিন। এই দ্রবণটি দিয়ে চোখ ধুয়ে নিন।
  • ঠান্ডা চাপ: ঠান্ডা চাপ চোখের ফোলাভাব এবং জ্বালা কমাতে সাহায্য করে। দুটি তুলোর বল ঠান্ডা পানিতে ভিজিয়ে চোখে রেখে দিন।
  • রসুন: রসুন একটি প্রাকৃতিক অ্যান্টিহিস্টামিন যা চোখের অ্যালার্জির লক্ষণগুলি কমাতে সাহায্য করে। এক কোয়া রসুন থেঁতো করে এক চা চামচ মধুর সাথে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি দিয়ে চোখ ধুয়ে নিন।

অন্যান্য ঘরোয়া উপায়

  • অ্যালার্জি সৃষ্টিকারী জিনিসগুলি এড়িয়ে চলুন: অ্যালার্জির লক্ষণগুলি এড়াতে, অ্যালার্জির সৃষ্টিকারী জিনিসগুলি এড়িয়ে চলুন। এগুলির মধ্যে রয়েছে ধুলাবালি, ফুলের পরাগ, পশুর লোম, খাবার ইত্যাদি।
  • পর্যাপ্ত ঘুম নিন: পর্যাপ্ত ঘুম শরীরকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।
  • স্বাস্থ্যকর খাবার খান: স্বাস্থ্যকর খাবার শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।
  • নিয়মিত ব্যায়াম করুন: নিয়মিত ব্যায়াম শরীরকে সুস্থ রাখতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।

যদি অ্যালার্জির লক্ষণগুলি তীব্র হয় বা দীর্ঘস্থায়ী হয়, তাহলে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত।

আরো পড়ুনঃ পিজি হাসপাতালের ডাক্তারদের তালিকা

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top