আসতাগফিরুল্লাহ অর্থ কি? আসতাগফিরুল্লাহ হাল্লাজি লা ইলাহা

আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠক, আজকে আমি আপনাদেরকে আসতাগফিরুল্লাহ অর্থ কি, আসতাগফিরুল্লাহ হাল্লাজি লা ইলাহা, আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া আরবী বাংলা, আসতাগফিরুল্লাহ এর উপকারিতা ইত্যাদি সম্পর্কে জানবো। তো চলুন শুরু করা যাক।

আসতাগফিরুল্লাহ অর্থ কি?

আরবি শব্দ “আস্তাগফিরুল্লাহ”-এর অর্থ হল “আমি আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই।” এটি একটি ইসলামি দোয়া যা মুসলমানরা তাদের পাপের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করার জন্য ব্যবহার করে। এই দোয়াটি প্রতিদিন পাঠ করা উচিত, কারণ এটি আমাদেরকে আল্লাহর কাছে ফিরে আসার এবং তাঁর রহমত লাভের জন্য একটি উপায়।

“আস্তাগফিরুল্লাহ” শব্দটি দুটি অংশে বিভক্ত:

  • “আস্তাগফিরু” – “আমি ক্ষমা চাই”
  • “আল্লাহ” – “আল্লাহ”

এই দোয়াটি পাঠ করার সময়, আমাদেরকে আমাদের মনের ভেতর থেকে অনুতপ্ত হতে হবে এবং আমাদের পাপ থেকে বিরত থাকতে প্রতিজ্ঞা করতে হবে। আমরা যদি সত্যিকার অর্থে আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই, তাহলে তিনি আমাদেরকে অবশ্যই ক্ষমা করবেন।

“আস্তাগফিরুল্লাহ” দোয়ার অনেক উপকারিতা রয়েছে। এটি আমাদের পাপ থেকে মুক্ত হতে সাহায্য করে, আমাদের আত্মাকে শুদ্ধ করে, এবং আমাদেরকে আল্লাহর কাছে আরও নিকটবর্তী করে। এই দোয়াটি আমাদেরকে আল্লাহর রহমত ও দয়া লাভের জন্য একটি উপায়।

আসতাগফিরুল্লাহ হাল্লাজি লা ইলাহা অর্থ কি?

আসতাগফিরুল্লাহ হাল্লাজি লা ইলাহা

আস্তাগফিরুল্লাহ হাল্লাজি লা ইলাহা ইল্লা হুওয়াল হাইয়্যুল কইয়্যুমু ওয়া আতুবু ইলায়হি এর অর্থ হলো, “আমি সেই আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই, যিনি ছাড়া প্রকৃতপক্ষে কোনো মাবুদ নেই, তিনি চিরঞ্জীব, চিরস্থায়ী এবং তাঁর কাছেই (তাওবাহ করে) ফিরে আসি।”

আস্তাগফিরুল্লাহ এর অর্থ হলো, “আমি আল্লাহর ক্ষমা প্রার্থনা করছি।”

হাল্লাজি লা ইলাহা ইল্লা হুওয়া এর অর্থ হলো, “যিনি ছাড়া প্রকৃতপক্ষে কোনো মাবুদ নেই।”

হাইয়্যুল কইয়্যুমু এর অর্থ হলো, “চিরঞ্জীব, চিরস্থায়ী।”

আরো পড়ুনঃ  বাথরুমে প্রবেশ করার দোয়া

ওয়া আতুবু ইলায়হি এর অর্থ হলো, “এবং তাঁর কাছেই (তাওবাহ করে) ফিরে আসি।”

এই দোয়াটি আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনার একটি গুরুত্বপূর্ণ দোয়া। এই দোয়াটি পড়লে আল্লাহ তাআলা বান্দার গুনাহ মাফ করে দেন।

রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রতিদিন ৭০ বারের অধিক ইসতেগফার করতেন। তিনি বলেছেন, “তোমরা বেশি বেশি ইসতেগফার কর, কেননা আল্লাহ তাআলা ক্ষমাশীল, তিনি যখন কাউকে ক্ষমা করেন, তখন সে যেন নতুন করে জন্মগ্রহণ করেছে।” (বুখারী ও মুসলিম)

আমাদের উচিত, প্রতিদিন বেশি বেশি ইসতেগফার করা, বিশেষ করে নামাজের পর, কুরআন পড়ার পর, রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এবং সকালে ঘুম থেকে উঠে।

আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া আরবী বাংলা

আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া আরবী বাংলা

আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া হলো আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনার দোয়া। এটি আরবীতে “أَسْتَغْفِرُ اللهَ” এবং বাংলায় “আস্তাগফিরুল্লাহ” নামে পরিচিত। আসতাগফিরুল্লাহ দোয়াটি ছোট হলেও এর গুরুত্ব অনেক। হাদিসে এসেছে, রাসূলুল্লাহ (সা.) প্রতিদিন ৭০ বার বা তারও বেশি আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া করতেন।

আরবীতে আসতাগফিরুল্লাহ দোয়াটি নিম্নরূপ:

أَسْتَغْفِرُ اللهَ

আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া আরবী বাংলা উচ্চারণ:

আস্‌তাগফিরুল্লা

আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া আরবী বাংলা অর্থ:

আমি আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই।

আসতাগফিরুল্লাহ দোয়াটি যেকোনো সময় যেকোনো স্থানে পড়া যায়। তবে, প্রতি ওয়াক্ত ফরজ নামাজের পর, বিছানায় যাওয়ার আগে, পাপ করে ফেললে, হতাশা বা দুঃখ পেলে, কষ্ট বা বিপদ-আপদে পড়লে, সন্তানদের জন্য দোয়া করার সময়, এবং অন্যান্য সময় আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া পড়ার বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে।

আসতাগফিরুল্লাহ এর উপকারিতা

আসতাগফিরুল্লাহ অর্থ “আমি আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই”। এটি একটি ইসলামী দোয়া যা আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাওয়ার জন্য ব্যবহৃত হয়। আসতাগফিরুল্লাহ বলার অনেক উপকারিতা রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে:

  • পাপ থেকে ক্ষমা লাভ করা: আল্লাহ তাআলা বলেন, “আল্লাহ তাআলা ক্ষমাশীল, তিনি সব পাপ ক্ষমা করে দেন, তিনি মহান ক্ষমাশীল।” (সূরা আন-নূর, আয়াত ৩১)
  • আল্লাহর নৈকট্য লাভ করা: আল্লাহ তাআলা বলেন, “হে ঈমানদারগণ! তোমরা বেশি বেশি ক্ষমা প্রার্থনা কর এবং আল্লাহকে বেশি বেশি স্মরণ কর, যাতে তোমরা সফল হও।” (সূরা আল-আহযাব, আয়াত ৭১)
  • অন্তরের পরিশুদ্ধি: আল্লাহ তাআলা বলেন, “নিশ্চয়ই আল্লাহ তাআলা ঐ ব্যক্তিকে ভালোবাসেন, যে তার পাপ থেকে তওবা করে এবং পরিশুদ্ধ হয়।” (সূরা আল-বাকারাহ, আয়াত ২২২)
  • দুঃখ ও কষ্ট থেকে মুক্তি লাভ করা: আল্লাহ তাআলা বলেন, “যখন তোমরা দুঃখে পড়বে, তখন আল্লাহর কাছে সাহায্য চাও, নিশ্চয়ই তিনি সর্বশ্রোতা, সর্বজ্ঞ।” (সূরা আল-আনফাল, আয়াত ৬০)
  • আল্লাহর রহমত ও বরকত লাভ করা: আল্লাহ তাআলা বলেন, “আল্লাহ তাআলা ঐ ব্যক্তিকে ভালোবাসেন, যে বারবার তাঁর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে।” (সূরা আল-বাকারাহ, আয়াত ১৬০)
আরো পড়ুনঃ  আল মালিকু অর্থ কি

আসতাগফিরুল্লাহ বলার জন্য কোনো নির্দিষ্ট সময় বা স্থান নেই। যেকোনো সময় এবং যেকোনো স্থানে এটি বলা যেতে পারে। তবে, কিছু বিশেষ সময় ও স্থানে আসতাগফিরুল্লাহ বলা বেশি উপকারী। যেমন, ফজর ও মাগরিবের নামাজের পর, জুমার নামাজের পর, রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে, এবং কোনো গুনাহ করার পর।

আসতাগফিরুল্লাহ ছবি

আসতাগফিরুল্লাহ ছবি

উপসংহার

আপনি হয়তো আসতাগফিরুল্লাহ অর্থ কি, আসতাগফিরুল্লাহ অর্থ কি, আসতাগফিরুল্লাহ হাল্লাজি লা ইলাহা, আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া আরবী বাংলা, আসতাগফিরুল্লাহ এর উপকারিতা, আসতাগফিরুল্লাহ ছবি সব দেখে নিয়েছেন। কোনো কিছু জানার থাকলে কমেন্ট করতে পারেন। ধন্যবাদ।

আরো পড়ুনঃ বিশ্বাস নিয়ে ইসলামিক উক্তি

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top