আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম ২০২৩

আজকে আমরা আপনাদেরকে আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম সর্ম্পকে বলবো। আবাসিক হোটেল হলো এমন একটি হোটেল যেখানে সাধারণত দীর্ঘমেয়াদি ভাড়ার জন্য রুম দেওয়া হয়, যেমন মাস বা বছর। আবাসিক হোটেলগুলি প্রায়ই সাশ্রয়ী মূল্যের আবাসন প্রদান করে এবং শিক্ষার্থী, কাপল, কর্মী বা অন্যান্য ক্ষণস্থায়ী বাসিন্দাদের জন্য জনপ্রিয়।

বাংলাদেশে আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়মগুলি শহর থেকে শহরে পরিবর্তিত হয়। তবে, কিছু সাধারণ নিয়ম রয়েছে যা বেশিরভাগ জায়গায় প্রযোজ্য।

  • আবাসিক হোটেল ভাড়া করার জন্য, আপনাকে সাধারণত একটি ভাড়া চুক্তি স্বাক্ষর করতে হবে। এই চুক্তিতে ভাড়ার পরিমাণ, ভাড়া পরিশোধের সময়সীমা, এবং হোটেলের নীতিগুলির একটি বিবরণ অন্তর্ভুক্ত থাকবে।
  • আবাসিক হোটেলে ভাড়া পরিশোধ সাধারণত মাসিক বা বার্ষিক ভিত্তিতে করা হয়। ভাড়া পরিশোধের সময়সীমা চুক্তিতে নির্দিষ্ট করা হবে।
  • আবাসিক হোটেলগুলিতে সাধারণত কিছু অতিরিক্ত ফি প্রযোজ্য হতে পারে, যেমন বিদ্যুৎ, পানি, এবং গ্যাসের জন্য অতিরিক্ত বিল। এই অতিরিক্ত ফিগুলি চুক্তিতে নির্দিষ্ট করা হবে।
  • আবাসিক হোটেলে থাকার সময়, আপনাকে হোটেলের নীতিগুলি অনুসরণ করতে হবে। এই নীতিগুলি সাধারণত চুক্তিতে অন্তর্ভুক্ত থাকে।

Table of Contents

আবাসিক হোটেল ভাড়া নেওয়ার জন্য কি কি প্রয়োজন হয়?

আবাসিক হোটেল ভাড়া নেওয়ার জন্য কি কি প্রয়োজন হয়?

আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম জানার সাথে আবাসিক হোটেল ভাড়া নেওয়ার জন্য সাধারণত কি কি প্রয়োজন তা জানা জরূরী। নিম্নলিখিত কাগজপত্রগুলির প্রয়োজন হয়:

  • নাম, ঠিকানা এবং যোগাযোগের তথ্য
  • পরিচয়পত্র (জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স ইত্যাদি)
  • আয়ের প্রমাণ (বেতনপত্র, ব্যাংক স্টেটমেন্ট, আয়কর রিটার্ন ইত্যাদি)
  • পূর্ববর্তী ভাড়ার চুক্তি (যদি থাকে)

এছাড়াও, কিছু হোটেল অতিরিক্ত কাগজপত্রের প্রয়োজন হতে পারে, যেমন:

  • ব্যক্তিগত রেফারেন্স
  • জামিনদারের তথ্য
  • আবাসিক হোটেলে থাকার জন্য কারণ

আবাসিক হোটেল ভাড়া নেওয়ার জন্য সাধারণত একটি ভাড়াচুক্তি স্বাক্ষর করতে হয়। ভাড়াচুক্তিতে থাকার সময়কাল, ভাড়ার পরিমাণ, পরিষেবাগুলির বিবরণ এবং অন্যান্য শর্তাবলী উল্লেখ থাকে।

কাপলদের জন্য আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

কাপলদের জন্য আবাসিক হোটেল

কাপলদের জন্য আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম হল এমন হোটেল যা দম্পতিদের জন্য বিশেষভাবে ডিজাইন করা হয়েছে। এই হোটেলগুলিতে প্রায়শই রোমান্টিক পরিবেশ তৈরি করার জন্য বিভিন্ন সুবিধা এবং সুযোগ-সুবিধা থাকে, যেমন:

  • সুন্দরভাবে সাজানো রুম এবং বাথরুম
  • বেল বয় বা কন্টিনেন্টাল ব্রেকফাস্ট পরিষেবা
  • জলজ পুল, স্পা বা অন্যান্য বিনোদনমূলক সুযোগ-সুবিধা
  • রোমান্টিক ডিনারের জন্য রেস্তোরাঁ

বাংলাদেশে কাপলদের জন্য কিছু জনপ্রিয় আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়মঃ

  • রয়েল শ্যামলী: এই হোটেলটি ঢাকার কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এবং এটিতে একটি সুন্দর সুইমিং পুল, স্পা এবং একটি রেস্তোরাঁ রয়েছে যা রোমান্টিক ডিনারের জন্য আদর্শ।
  • হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল: এই হোটেলটি ঢাকার একটি বিলাসবহুল হোটেল যাতে একটি প্রাইভেট ডেকটিং রুম, একটি সুইমিং পুল এবং একটি স্পা রয়েছে।
  • হোটেল সোনারগাঁও: এই হোটেলটি ঢাকার একটি আরামদায়ক হোটেল যাতে একটি সুইমিং পুল, একটি স্পা এবং একটি রেস্তোরাঁ রয়েছে।
  • হোটেল রূপসী বাংলা: এই হোটেলটি ঢাকার একটিঐতিহ্যবাহী হোটেল যাতে একটি সুইমিং পুল, একটি স্পা এবং একটি রেস্তোরাঁ রয়েছে।
  • হোটেল সিটি ইন: এই হোটেলটি ঢাকার একটি সাশ্রয়ী মূল্যের হোটেল যাতে একটি সুইমিং পুল এবং একটি রেস্তোরাঁ রয়েছে।
আরো পড়ুনঃ  দুবাই টাকার রেট বাংলাদেশ | ১ দিরহাম = কত টাকা?

আপনি আপনার বাজেট এবং পছন্দ অনুযায়ী আপনার জন্য সঠিক হোটেলটি বেছে নিতে পারেন।

ভালো আবাসিক হোটেল চেনার উপায়

ভালো আবাসিক হোটেল চেনার উপায়

  • অবস্থান: হোটেলটি আপনার প্রয়োজনীয় স্থানে অবস্থিত কিনা তা নিশ্চিত করুন। আপনি যদি শহরের কেন্দ্রস্থলে থাকতে চান, তাহলে একটি হোটেল খুঁজে বের করুন যা জনপ্রিয় আকর্ষণ এবং দোকানের কাছাকাছি অবস্থিত। আপনি যদি শহরের বাইরে থাকতে চান, তাহলে একটি হোটেল খুঁজে বের করুন যা একটি সুন্দর দৃশ্য বা পরিবেশে অবস্থিত।
  • পরিষেবা: হোটেলটি ভাল পরিষেবা প্রদান করে কিনা তা নিশ্চিত করুন। হোটেলটিতে দয়ালু এবং সহায়ক কর্মী, সুন্দর পরিচ্ছন্ন কক্ষ এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা থাকা উচিত।
  • মূল্য: হোটেলের মূল্য আপনার বাজেট অনুসারে কিনা তা নিশ্চিত করুন। বিভিন্ন হোটেলের দাম তুলনা করে আপনি একটি ভাল চুক্তি পেতে পারেন।

বরিশাল আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

  • হোটেল রোদেলা : ফলপট্টিতে অবস্থিত এই হোটেলটিতে সিঙ্গেল, ডাবল, ট্রিপল এবং ফ্যামিলি রুম রয়েছে। রুমগুলো আধুনিক সুযোগ-সুবিধা দিয়ে সজ্জিত। হোটেলটিতে একটি রেস্টুরেন্ট, একটি বার এবং একটি 24-ঘন্টা ফ্রন্ট ডেস্ক রয়েছে।
  • হোটেল আলী : সদর রোডে অবস্থিত এই হোটেলটিতে সিঙ্গেল, ডাবল, ট্রিপল এবং ফ্যামিলি রুম রয়েছে। রুমগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন এবং আরামদায়ক। হোটেলটিতে একটি রেস্টুরেন্ট, একটি বার এবং একটি 24-ঘন্টা ফ্রন্ট ডেস্ক রয়েছে।
  • হোটেল প্যারাডাইস : হাসপাতাল রোডে অবস্থিত এই হোটেলটিতে সিঙ্গেল, ডাবল, ট্রিপল এবং ফ্যামিলি রুম রয়েছে। রুমগুলো আধুনিক সুযোগ-সুবিধা দিয়ে সজ্জিত। হোটেলটিতে একটি রেস্টুরেন্ট, একটি বার এবং একটি 24-ঘন্টা ফ্রন্ট ডেস্ক রয়েছে।

আপনি যদি বরিশালে আবাসিক হোটেল খুঁজছেন, তাহলে উপরের তথ্যগুলি আপনার কাজে লাগতে পারে।

সায়েদাবাদ আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

সায়েদাবাদ আবাসিক হোটেল ভাড়া সাধারণত ৫০০ থেকে ১০০০ টাকার মধ্যে। তবে, হোটেলের অবস্থান, সুযোগ-সুবিধা এবং মরসুমের উপর নির্ভর করে ভাড়ার তারতম্য হতে পারে।

সায়েদাবাদে কিছু জনপ্রিয় আবাসিক হোটেলের ভাড়া:

  • হোটেল সাউথ পয়েন্ট: ৬০০ টাকা থেকে ১০০০ টাকা
  • হোটেল ইকবাল: ৫০০ টাকা থেকে ৮০০ টাকা
  • হোটেল গ্র্যান্ড প্যালেস: ৮০০ টাকা থেকে ১২০০ টাকা
  • হোটেল সিটি ইন: ১০০০ টাকা থেকে ২০০০ টাকা
  • হোটেল স্টার প্যালেস: ১২০০ টাকা থেকে ২৫০০ টাকা

মিরপুর আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

মিরপুর আবাসিক হোটেল ভাড়া নির্ভর করে হোটেলের অবস্থান, সুযোগ-সুবিধা এবং রুমের ধরণের উপর। সাধারণত, মিরপুরে নন-এসি সিঙ্গেল রুম ভাড়া ১,০০০ থেকে ১,৩৫০ টাকা, নন-এসি ডাবল রুম ভাড়া ১,৯০০ টাকা এবং নন-এসি ট্রিপল রুম ভাড়া ২,৭০০ টাকা। এসি রুমের ভাড়া সিঙ্গেল, ডাবল এবং ট্রিপল রুমের জন্য যথাক্রমে ২,৪৫০ টাকা, ২,৭০০ থেকে ৩,০০০ টাকা এবং ৩,৫০০ টাকা।

মিরপুরে কিছু জনপ্রিয় আবাসিক হোটেলের ভাড়াঃ

  • হোটেল শাহানশাহ্ আবাসিক: সিঙ্গেল রুম ১,০০০ টাকা, ডাবল রুম ১,৫০০ টাকা, ট্রিপল রুম ১,৮০০ টাকা, এসি সিঙ্গেল রুম ২,৪৫০ টাকা, এসি ডাবল রুম ২,৭০০ টাকা, এসি ট্রিপল রুম ৩,০০০ টাকা।
  • হোটেল ওয়েস্ট পয়েন্ট আবাসিক: সিঙ্গেল রুম ১,২০০ টাকা, ডাবল রুম ১,৮০০ টাকা, ট্রিপল রুম ২,৪০০ টাকা, এসি সিঙ্গেল রুম ২,৫০০ টাকা, এসি ডাবল রুম ৩,০০০ টাকা, এসি ট্রিপল রুম ৩,৫০০ টাকা।
  • হোটেল ড্রিমল্যান্ড, মিরপুর -১: সিঙ্গেল রুম ১,১০০ টাকা, ডাবল রুম ১,৭০০ টাকা, ট্রিপল রুম ২,৩০০ টাকা, এসি সিঙ্গেল রুম ২,৬০০ টাকা, এসি ডাবল রুম ৩,২০০ টাকা, এসি ট্রিপল রুম ৩,৭০০ টাকা।
আরো পড়ুনঃ  ফেসবুকে স্ট্যাটাস

যশোর আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

  • হোটেল বুকিং করার সময়, আপনার নাম, ঠিকানা, ফোন নম্বর এবং থাকার তারিখ এবং সময় প্রদান করতে হবে।
  • হোটেল ভাড়া সাধারণত প্রতি রাতের জন্য প্রদান করা হয়।
  • হোটেলে থাকার সময়, আপনাকে হোটেলের নিয়ম ও বিধিনিষেধ মেনে চলতে হবে।
  • হোটেল থেকে চেক আউট করার সময়, আপনাকে হোটেল ভাড়া এবং অন্যান্য পরিষেবার জন্য মূল্য পরিশোধ করতে হবে।

যশোরের কিছু জনপ্রিয় আবাসিক হোটেল হল:

  • মনিহার রেসিডেন্স
  • হোটেল জাবের ইন্টারন্যাশনাল
  • হোটেল ওরিয়ন
  • হোটেল ম্যাগপাই
  • হোটেল রজনীগন্ধা

আপনি যদি যশোরে আবাসিক হোটেল ভাড়া করতে চান তবে আপনার পছন্দের হোটেলের সাথে যোগাযোগ করে বিস্তারিত তথ্য জেনে নিন।

উত্তরা আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

  • হোটেল ফোর হেভেন
  • হোটেল স্টার লাইট
  • হোটেল দ্য সান
  • হোটেল দ্য রয়্যাল
  • হোটেল নাইট ইন

এই হোটেলগুলির সবকটিই আধুনিক সুযোগ-সুবিধা এবং পরিষেবা প্রদান করে। তারা বিভিন্ন ধরণের রুমের অফার করে, যাতে আপনি আপনার প্রয়োজনীয়তা এবং বাজেটের সাথে মানানসই একটি রুম খুঁজে পেতে পারেন।

ময়মনসিংহ আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

ময়মনসিংহে আবাসিক হোটেল ভাড়া রুমের ধরন, অবস্থান এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার উপর নির্ভর করে। সাধারণত, একটি সাধারণ মানের রুমের ভাড়া প্রতি রাতে ৫০০-৮০০ টাকার মধ্যে হয়ে থাকে। আর একটি উন্নতমানের রুমের ভাড়া প্রতি রাতে ১৫০০-২০০০ টাকার মধ্যে হয়ে থাকে। এছাড়াও, দুটি বা তিনটি বেডের রুম ভাড়া পেয়ে যাবেন ২০০০ টাকায়।

ময়মনসিংহ এর জনপ্রিয় আবাসিক হোটেলের ভাড়ার তালিকা:

  • হোটেল আমির ইন্টারন্যাশনাল: প্রতি রাতে ৯০০-১৫০০ টাকা
  • হোটেল মোস্তাফিজ: প্রতি রাতে ৫০০-৭০০ টাকা
  • হোটেল হেরা: প্রতি রাতে ৪০০-৬০০ টাকা
  • হোটেল উত্তরা: প্রতি রাতে ৬০০-৮০০ টাকা
  • হোটেল বনানী আবাসিক: প্রতি রাতে ৬০০-৮০০ টাকা

কমলাপুর আবাসিক আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

  • হোটেল নিকুঞ্জ রেসিডেন্সিয়াল:
    • নন-এসি সিঙ্গেল রুম: ১,০০০ টাকা
    • এসি সিঙ্গেল রুম: ১,৫০০ টাকা
    • নন-এসি ডাবল রুম: ১,৫০০ টাকা
    • এসি ডাবল রুম: ২,০০০ টাকা
  • হোটেল আল ফয়সাল (আবাসিক):
    • নন-এসি সিঙ্গেল রুম: ১,২০০ টাকা
    • এসি সিঙ্গেল রুম: ১,৭০০ টাকা
    • নন-এসি ডাবল রুম: ১,৭০০ টাকা
    • এসি ডাবল রুম: ২,২০০ টাকা
  • প্রিন্স গার্ডেন হোটেল আবাসিক:
    • নন-এসি সিঙ্গেল রুম: ১,২০০ টাকা
    • এসি সিঙ্গেল রুম: ১,৮০০ টাকা
    • নন-এসি ডাবল রুম: ১,৮০০ টাকা
    • এসি ডাবল রুম: ২,২০০ টাকা

ফকিরাপুল আবাসিক আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

ফকিরাপুল আবাসিক হোটেল ভাড়া অনেক রকম হয়। এটি হোটেলের অবস্থান, পরিষেবা, এবং সুযোগ-সুবিধা অনুযায়ী পরিবর্তিত হয়। সাধারণত, একটি একক কক্ষের ভাড়া ১,০০০ থেকে ১,৫০০ টাকার মধ্যে হয়। একটি ডাবল কক্ষের ভাড়া ১,৫০০ থেকে ২,০০০ টাকার মধ্যে হয়। একটি সুইটের ভাড়া ২,০০০ থেকে ৩,০০০ টাকার মধ্যে হয়।

ফকিরাপুল এর জনপ্রিয় আবাসিক হোটেলের ভাড়ার তালিকা:

  • হোটেল জোহরা (রেসিডেন্টিয়াল)
  • ভাড়াঃ ৫০০ টাকা থেকে বারোশো টাকা পর্যন্ত প্রতি
  • যোগাযোগ: 02-9113492

 

  • হোটেলের নাম : হোটেল রহমানিয়া
  • ভাড়া : ৫৫০ টাকা থেকে ১৬০০ টাকা পর্যন্ত প্রতিরাত
  • যোগাযোগ: 01872-734484
আরো পড়ুনঃ  ভালোবাসার মানুষকে নিয়ে কিছু কথা

 

  • হোটেলের নাম : হোটেল উপবন
  • ভাড়া : ৬০০ টাকা থেকে ১৪০০ টাকা পর্যন্ত প্রতি রাত
  • যোগাযোগ: 01711-464859

কুমিল্লা আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

কুমিল্লায় অনেক আবাসিক হোটেল রয়েছে। এখানে কয়েকটি জনপ্রিয় হোটেলের তালিকা দেওয়া হল:

  • নিউ হোটেল ময়নামতি (আবাসিক)
  • হোটেল সোনালী (আবাসিক)
  • হোটেল আল – রফিক আবাসিক
  • হোটেল ইকবাল (আবাসিক)
  • হোটেল স্টার (আবাসিক)

খুলনা আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

  • টাইগার গার্ডেন ইন্টারন্যাশনাল: এই হোটেলটি শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এবং এটিতে বিভিন্ন ধরণের সুযোগ-সুবিধা রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে একটি সুইমিং পুল, একটি জিম এবং একটি রেস্তোরাঁ।
  • হোটেল রয়্যাল ইন্টারন্যাশনাল: এই হোটেলটিও শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত এবং এটিতে একটি 24-ঘন্টা রিসেপশন, একটি কনফারেন্স সেন্টার এবং একটি লন্ড্রি সার্ভিস রয়েছে।
  • হোটেল মিলেনিয়াম: এই হোটেলটি শহরের উত্তর-পশ্চিম অংশে অবস্থিত এবং এটিতে একটি বাগান, একটি ক্যাফে এবং একটি বিনোদন কক্ষ রয়েছে।
  • হোটেল ক্যাসেল সালাম: এই হোটেলটি শহরের দক্ষিণ-পূর্ব অংশে অবস্থিত এবং এটিতে একটি বার, একটি রেস্তোরাঁ এবং একটি টেনিস কোর্ট রয়েছে।
  • হোটেল স্বপ্নপুরী আবাসিক: এই হোটেলটি শহরের উত্তর-পশ্চিম অংশে অবস্থিত এবং এটিতে একটি 24-ঘন্টা রিসেপশন, একটি কনফারেন্স সেন্টার এবং একটি লন্ড্রি সার্ভিস রয়েছে।

ফার্মগেট এলাকার আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

ফার্মগেট এলাকার আবাসিক হোটেল

ফার্মগেট এলাকায় বেশ কয়েকটি আবাসিক হোটেল রয়েছে। যার থেকে আপনি আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম জানতে পারবেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল:

  • হোটেল ফার্মগেট
  • মোঘল আবাসিক হোটেল
  • হোটেল লাব্বাইক
  • হোটেল সম্রাট

পান্থপথ এর কিছু জনপ্রিয় আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

পান্থপথ এর কিছু জনপ্রিয় আবাসিক হোটেল হল:

  • প্রিয় নিবাস
  • ড্রিম হোটেল
  • আম্বালা ইন
  • হোটেল মুনা

রাজশাহী আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

  • হোটেল সুকন্যা ইন্টারন্যাশনাল: এই হোটেলটি রাজশাহীর কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত। এটিতে বিভিন্ন ধরণের রুম রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে সিঙ্গেল রুম, ডাবল রুম, ট্রিপল রুম এবং পরিবারের জন্য রুম। হোটেলের প্রতি রাতের ভাড়া প্রায় ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা।
  • হোটেল রাজমহল: এই হোটেলটি রাজশাহীর জিমন্যাসিয়াম মার্কেটের কাছে অবস্থিত। এটিতে বিভিন্ন ধরণের রুম রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে সিঙ্গেল রুম, ডাবল রুম, ট্রিপল রুম এবং পরিবারের জন্য রুম। হোটেলের প্রতি রাতের ভাড়া প্রায় ৫০০ থেকে ১৫০০ টাকা।
  • হোটেল গুলশান: এই হোটেলটি রাজশাহীর সাহেব বাজারে অবস্থিত। এটিতে বিভিন্ন ধরণের রুম রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে সিঙ্গেল রুম, ডাবল রুম, ট্রিপল রুম এবং পরিবারের জন্য রুম। হোটেলের প্রতি রাতের ভাড়া প্রায় ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা।
  • হোটেল হাসনা হেনা আবাসিক: এই হোটেলটি রাজশাহীর রাজপাড়ায় অবস্থিত। এটিতে বিভিন্ন ধরণের রুম রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে সিঙ্গেল রুম, ডাবল রুম, ট্রিপল রুম এবং পরিবারের জন্য রুম। হোটেলের প্রতি রাতের ভাড়া প্রায় ৪০০ থেকে ৮০০ টাকা।
  • হোটেল আল-আরাফাহ্: এই হোটেলটি রাজশাহীর সাহেব বাজারে অবস্থিত। এটিতে বিভিন্ন ধরণের রুম রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে সিঙ্গেল রুম, ডাবল রুম, ট্রিপল রুম এবং পরিবারের জন্য রুম। হোটেলের প্রতি রাতের ভাড়া প্রায় ৩০০ থেকে ৭০০ টাকা।

ঢাকা এয়ারপোর্ট আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

  • আম্বালা ইন একটি সাশ্রয়ী মূল্যের হোটেল যা ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে 2.5 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এটিতে কেবলমাত্র রুম, ডে-ব্রেকফাস্ট এবং বিমানবন্দর পরিবহন রয়েছে।
  • শুভ এবং আল-আমিন আবাসিক হোটেল একটি আরও আধুনিক হোটেল যা ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে 1 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এটিতে কেবলমাত্র রুম, ডে-ব্রেকফাস্ট, বিমানবন্দর পরিবহন এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।
  • হোটেল মহানগর আবাসিক একটি উচ্চ-মানের হোটেল যা ঢাকা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে 3 কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এটিতে সুইট, ডে-ব্রেকফাস্ট, বিমানবন্দর পরিবহন এবং অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।

উপসংহার – আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম

তো, বন্ধুরা, আপনারা এখন আবাসিক হোটেল ভাড়ার নিয়ম, কীভাবে আবাসিক হোটেল ভাড়া দিতে হয়, কীভাবে একটি ভাল আবাসিক হোটেল সনাক্ত করতে হয় ইত্যাদি বুঝতে পেরেছেন। আমি আশা করি আপনি এই পোস্ট উপভোগ করেছেন।

যদি আপনি এটি পছন্দ করেন, একটি মন্তব্য রেখে আমাদের জানান। এবং সব নতুন পোস্টে আপ টু ডেট থাকার জন্য প্রতিদিন আমাদের ওয়েবসাইট পরিদর্শন করতে ভুলবেন না। আমি ভবিষ্যতে পোস্টে দেখা হবে। ততদিন পর্যন্ত সকলকে ভালো ও সুস্থ থাকতে হবে। আল্লাহ হাফেজ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top