বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক

আজকে আমি আপনাদেরকে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম সম্পর্কে জানাবো। তো চলুন শুরু করা যাক।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক এর সিস্টেম রয়েছে। এই সিস্টেম ব্যবহার করে আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য যাচাই করতে পারেন।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন:

  1. বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে যান (https://www.nidw.gov.bd/)।
  2. “ভোটার আইডি কার্ড চেক” ট্যাবে ক্লিক করুন।
  3. আপনার ভোটার আইডি নম্বর এবং জন্ম তারিখ প্রবেশ করুন।
  4. “চেক” বোতামে ক্লিক করুন।

আপনার ভোটার আইডি নম্বর এবং জন্ম তারিখ সঠিক হলে, আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য দেখতে পাবেন। এই তথ্যগুলির মধ্যে রয়েছে আপনার নাম, ঠিকানা, জন্ম তারিখ, লিঙ্গ, এবং ভোটার এলাকা।

আপনি যদি আপনার ভোটার আইডি নম্বর না জানেন, তাহলে আপনি আপনার নাম এবং জন্ম তারিখ ব্যবহার করেও আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য যাচাই করতে পারেন। এই ক্ষেত্রে, “ভোটার আইডি নম্বর” ফিল্ডে “অজানা” লিখুন।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার আরেকটি উপায় হল একটি মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করা। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের একটি “ভোটার আইডি কার্ড” অ্যাপ রয়েছে যা আপনি গুগল প্লে স্টোর বা অ্যাপল অ্যাপ স্টোর থেকে ডাউনলোড করতে পারেন। এই অ্যাপটি ব্যবহার করে আপনি আপনার ভোটার আইডি নম্বর, জন্ম তারিখ, বা নাম ব্যবহার করে আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য যাচাই করতে পারেন।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য:

  • ভোটার আইডি নম্বর
  • জন্ম তারিখ

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার সুবিধা:

  • আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য যাচাই করতে পারেন।
  • আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডের অবস্থান জানতে পারেন।
  • আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে গেলে বা নষ্ট হয়ে গেলে নতুন ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারেন।
আরো পড়ুনঃ  নগদ একাউন্ট কোড ভুলে গেলে করণীয়

এসএমএস এর মাধ্যমে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে এসএমএস এর মাধ্যমে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন:

  1. আপনার মোবাইল ফোন থেকে 105 নম্বরে একটি এসএমএস পাঠান।
  2. এসএমএস এর বক্সে “SC” লিখুন।
  3. একটি স্পেস দিয়ে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর (NID) লিখুন।
  4. এসএমএসটি প্রেরণ করুন।

আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর ১৩ ডিজিটের হলে, এসএমএস এর বক্সে আপনার জন্ম সাল যোগ করে ১৭ ডিজিট করে এসএমএস করতে হবে।

উদাহরণস্বরূপ, যদি আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর 1234567890 হয় এবং আপনার জন্ম সাল 1990 হয়, তাহলে আপনাকে 105 নম্বরে নিম্নলিখিত এসএমএসটি পাঠাতে হবে:

SC 19901234567890

ফিরতি এসএমএসে আপনার ভোটার আইডি কার্ডের সমস্ত তথ্য পাবেন, যেমন:

  • নাম
  • ভোটার নম্বর
  • ভোটকেন্দ্রের নাম
  • ভোটকেন্দ্রের ঠিকানা
  • ভোটকেন্দ্রের ক্রমিক নম্বর

আপনি যদি আপনার বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক এর তথ্য হারিয়েছে বা ভুলে গেছেন, তাহলে এই পদ্ধতিটি ব্যবহার করে আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য জানতে পারবেন।

এছাড়াও, আপনি নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইট বা মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করেও আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য জানতে পারবেন।

জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসন্ধান

জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসন্ধান

জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসন্ধানের জন্য দুটি উপায় রয়েছে:

  • অনলাইনে অনুসন্ধান
  • এসএমএস এর মাধ্যমে অনুসন্ধান

অনলাইনে অনুসন্ধান

অনলাইনে জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসন্ধানের জন্য নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন:

  1. বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে যান।
  2. “ভোটার তথ্য অনুসন্ধান” বিকল্পটি নির্বাচন করুন।
  3. জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার এবং জন্মতারিখ প্রদান করুন।
  4. সিকিউরিটি ক্যাপচা পূরণ করুন।
  5. “সাবমিট” বাটনে ক্লিক করুন।

এসএমএস এর মাধ্যমে অনুসন্ধান

এসএমএস এর মাধ্যমে জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসন্ধানের জন্য নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন:

  1. আপনার মোবাইলের মেসেজ অপশনে যান।
  2. “NID <space> NID নম্বর <space> জন্মতারিখ” লিখুন।
  3. 105 নম্বরে পাঠিয়ে দিন।
আরো পড়ুনঃ  মোবাইল নাম্বার দিয়ে পরিচয় বের করার উপায়

উদাহরণস্বরূপ, আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার 123456789012 এবং জন্মতারিখ 2000-01-01 হলে, এসএমএসটি হবে:

NID 123456789012 2000-01-01

105 নম্বর থেকে ফিরতি মেসেজে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য পাবেন।

বর্তমান সময় (2023-10-30, 21:31:39 PST)

বর্তমান সময়ে, জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসন্ধানের জন্য কোনো ফি লাগে না।

অন্যান্য তথ্য

  • জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার ১০ সংখ্যার বা ১৭ সংখ্যার হতে পারে।
  • জন্মতারিখ “dd-mm-yyyy” ফর্ম্যাটে প্রদান করতে হবে।
  • মোবাইল নাম্বার সচল হতে হবে।

আশা করি এই তথ্যগুলি আপনার কাজে লাগবে।

ভোটার আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার দুটি উপায় রয়েছে। একটি হল অনলাইনে এবং অন্যটি হল মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে।

অনলাইনে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম:

  1. প্রথমে নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইট https://services.nidw.gov.bd/ এ যান।
  2. “ভোটার তথ্য যাচাইকরণ” অপশনে ক্লিক করুন।
  3. আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর এবং জন্ম তারিখ প্রবেশ করুন।
  4. “যাচাই করুন” বাটনে ক্লিক করুন।

আপনার তথ্য সঠিক হলে, আপনার ভোটার আইডি কার্ডের সমস্ত তথ্য প্রদর্শিত হবে।

মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম:

  • “ভোটার আইডি কার্ড চেক NID Check” নামে একটি মোবাইল অ্যাপ গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করুন।
  • অ্যাপটি খুলুন এবং আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর এবং জন্ম তারিখ প্রবেশ করুন।
  • “যাচাই করুন” বাটনে ক্লিক করুন।

আপনার তথ্য সঠিক হলে, আপনার ভোটার আইডি কার্ডের সমস্ত তথ্য অ্যাপটিতে প্রদর্শিত হবে।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার সময় যে বিষয়গুলো লক্ষ্য রাখবেন:

  • আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর এবং জন্ম তারিখ সঠিকভাবে প্রবেশ করুন।
  • আপনার তথ্য যদি সঠিক হয়, তাহলে আপনার ভোটার আইডি কার্ডের সমস্ত তথ্য প্রদর্শিত হবে।
  • যদি আপনার তথ্য ভুল হয়, তাহলে আপনার ভোটার আইডি কার্ডের কোন তথ্য প্রদর্শিত হবে না।
আরো পড়ুনঃ  ইলেকট্রিক চুলা price in bangladesh

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক আসল না নকল চেক করার নিয়ম:

ভোটার আইডি কার্ড আসল না নকল চেক করার জন্য নিম্নলিখিত বিষয়গুলো লক্ষ্য করুন:

  • ভোটার আইডি কার্ডের পিছনে একটি নিরাপত্তা ফিতা থাকে। এই ফিতাটি ছিঁড়ে গেলে ভোটার আইডি কার্ডটি নকল।
  • ভোটার আইডি কার্ডের পিছনে একটি QR কোড থাকে। এই কোডটি স্ক্যান করে ভোটার আইডি কার্ডটি আসল না নকল তা যাচাই করা যায়।
  • ভোটার আইডি কার্ডের উপরে একটি নিরাপত্তা ফিল্ম থাকে। এই ফিল্মটি তুলে ফেললে ভোটার আইডি কার্ডটি নকল।

ভোটার আইডি কার্ড সংক্রান্ত অন্যান্য তথ্য:

  • ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে গেলে বা নষ্ট হয়ে গেলে নতুন করে ইস্যু করা যায়।
  • ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে হলে নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে আবেদন করতে হবে।

আশা করি এই তথ্যগুলো আপনার কাজে লাগবে।

নতুন ভোটার আইডি কার্ড চেক

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য, আপনাকে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে যেতে হবে। ওয়েবসাইটে, “ভোটার আইডি কার্ড চেক” লিঙ্কটিতে ক্লিক করুন। তারপরে, আপনার ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর এবং জন্ম তারিখ প্রবেশ করুন। আপনার তথ্য সঠিক হলে, আপনার ভোটার আইডি কার্ডের বিবরণ প্রদর্শিত হবে।

আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডের বিবরণও নির্বাচন কমিশনের মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে চেক করতে পারেন। অ্যাপটি ডাউনলোড করতে, Google Play Store বা App Store এ যান এবং “নির্বাচন কমিশন” অনুসন্ধান করুন। অ্যাপটি খুলুন এবং “ভোটার আইডি কার্ড চেক” অপশনটি নির্বাচন করুন। তারপরে, আপনার ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর এবং জন্ম তারিখ প্রবেশ করুন। আপনার তথ্য সঠিক হলে, আপনার ভোটার আইডি কার্ডের বিবরণ প্রদর্শিত হবে।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করুন:

  1. বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে যান।
  2. “ভোটার আইডি কার্ড চেক” লিঙ্কটিতে ক্লিক করুন।
  3. আপনার ভোটার আইডি কার্ডের নম্বর এবং জন্ম তারিখ প্রবেশ করুন।
  4. “চেক” বোতামে ক্লিক করুন।

উপসংহার

আপনারা উপরের স্টেপ গুলি থেকে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার নিয়ম সম্পর্কে জেনে গেছেন। আরো কিছু জানার থাকলে নিচে কমেন্ট করে জানাতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ পাসপোর্ট করার নিয়ম ও খরচ ২০২৩

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top