১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের ছবি

হ্যালো বন্ধুরা, কেমন আছেন সবাই? আশা করি সকলেই খুব ভালো আছেন। আপনারা অনেকেই ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের ছবি সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। আজকে আমি আপনাদেরকে ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের ছবি সম্পর্কে বলবো। তো চলুন শুরু করা যাক।

১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের ছবি

১৬ই ডিসেম্বর বিজয় দিবস বাংলাদেশের জাতীয় দিবস। এটি ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত বিজয়ের দিন। এদিন পাকিস্তানি বাহিনীর আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সুপ্রতিষ্ঠিত হয়।

বিজয় দিবসের দিন বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে নানা আয়োজন করা হয়। ঢাকায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান উদযাপন করা হয়। এদিন সকাল ৮টায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এরপর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের ছবি

বিজয় দিবসের দিন বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে মিছিল, শোভাযাত্রা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আলোকসজ্জা করা হয়। এদিন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ছুটি থাকে।

বিজয় দিবস বাংলাদেশের জাতীয় উৎসব। এদিন বাংলাদেশবাসী তাদের কৃতজ্ঞতা জানায় মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি।

বিজয় দিবসের ছবি আঁকা

১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস বক্তব্য

বিজয় দিবসের ছবি আঁকার জন্য প্রথমে একটি কাগজ নিন এবং এতে একটি আয়তক্ষেত্র আঁকুন। এই আয়তক্ষেত্রটি হবে আপনার ছবির ফ্রেম। এরপর আয়তক্ষেত্রের মাঝখানে একটি বৃত্ত আঁকুন। এই বৃত্তটি হবে জাতীয় স্মৃতিসৌধের প্রতীক।

জাতীয় স্মৃতিসৌধের আকার ও রঙ অনুযায়ী বৃত্তটি আঁকুন। বৃত্তের ভিতরে কিছু মুক্তিযোদ্ধার প্রতিকৃতি আঁকতে পারেন। এরপর আয়তক্ষেত্রের চারপাশে কিছু পতাকা ও লাল গোলাপ আঁকুন।

বিজয় দিবসের ছবি আঁকার জন্য আপনি যেকোনো রং ব্যবহার করতে পারেন। তবে সাধারণত লাল, সবুজ ও নীল রং ব্যবহার করা হয়।

আরো পড়ুনঃ  বিজ্ঞানের জনক কে

এখানে একটি সহজ নিয়ম অনুযায়ী বিজয় দিবসের ছবি আঁকার পদ্ধতি দেওয়া হল:

১. একটি কাগজ নিন এবং এতে একটি আয়তক্ষেত্র আঁকুন। ২. আয়তক্ষেত্রের মাঝখানে একটি বৃত্ত আঁকুন। ৩. বৃত্তের আকার ও রঙ অনুযায়ী জাতীয় স্মৃতিসৌধের প্রতিকৃতি আঁকুন। ৪. বৃত্তের ভিতরে কিছু মুক্তিযোদ্ধার প্রতিকৃতি আঁকুন। ৫. আয়তক্ষেত্রের চারপাশে কিছু পতাকা ও লাল গোলাপ আঁকুন। ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের ছবি

এছাড়াও আপনি নিজের ইচ্ছামতো বিজয় দিবসের ছবি আঁকতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, আপনি একটি বিজয় দিবসের মিছিল, শোভাযাত্রা বা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের ছবি আঁকতে পারেন।

বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা কার্ড বানানো

বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা কার্ড বানানোর জন্য প্রথমে একটি কাগজ নিন। কাগজটি যেকোনো রঙের হতে পারে। তবে সাধারণত লাল, সবুজ বা নীল রঙের কাগজ ব্যবহার করা হয়।

কাগজটিকে একটি আয়তক্ষেত্র আকারে কেটে নিন। আয়তক্ষেত্রের আকার আপনার পছন্দমতো হতে পারে।

এরপর কাগজের উপর বিজয় দিবসের কোনো ছবি আঁকুন। আপনি নিজের ইচ্ছামতো ছবি আঁকতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ, আপনি একটি জাতীয় স্মৃতিসৌধ, বিজয় দিবসের মিছিল বা শোভাযাত্রার ছবি আঁকতে পারেন।

ছবি আঁকার পর কার্ডের উপর কিছু শুভেচ্ছা বাণী লিখুন। আপনি যে কাউকে এই কার্ডটি দিতে পারেন।

এখানে একটি সহজ নিয়ম অনুযায়ী বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা কার্ড বানানোর পদ্ধতি দেওয়া হল:

১. একটি কাগজ নিন। ২. কাগজটিকে একটি আয়তক্ষেত্র আকারে কেটে নিন। ৩. কাগজের উপর বিজয় দিবসের কোনো ছবি আঁকুন। ৪. কার্ডের উপর কিছু শুভেচ্ছা বাণী লিখুন।

এছাড়াও আপনি কার্ডটিকে আরও সুন্দর করতে কিছু স্টিকার বা টেপ ব্যবহার করতে পারেন।

১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা

সবাইকে মহান বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা। ১৬ ডিসেম্বর, ১৯৭১। আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার।

মহান মুক্তিযুদ্ধে অগণিত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা অর্জন করেছি আমাদের স্বাধীনতা। তাদের প্রতি আমাদের রয়েছে গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা। ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের ছবি

আরো পড়ুনঃ  বাংলা নববর্ষ অনুচ্ছেদ

বিজয় দিবস আমাদের জন্য একটি আনন্দের দিন। এই দিন আমরা আমাদের স্বাধীনতার জয় উদযাপন করি। আমরা আমাদের স্বাধীনতাকে টিকিয়ে রাখার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

এই বিজয় দিবসে আমরা সকলে মিলে শপথ নিই যে, আমরা আমাদের দেশকে একটি সমৃদ্ধ ও উন্নত দেশে পরিণত করব।

বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা কার্ড লেখা

কবে ১৬ ডিসেম্বর জাতীয় দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়

প্রিয় [প্রাপক নাম],

মহান বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা। – ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের ছবি

১৬ ডিসেম্বর, ১৯৭১। আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার।

মহান মুক্তিযুদ্ধে অগণিত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা অর্জন করেছি আমাদের স্বাধীনতা। তাদের প্রতি আমাদের রয়েছে গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা।

বিজয় দিবস আমাদের জন্য একটি আনন্দের দিন। এই দিন আমরা আমাদের স্বাধীনতার জয় উদযাপন করি। আমরা আমাদের স্বাধীনতাকে টিকিয়ে রাখার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

এই বিজয় দিবসে আমরা সকলে মিলে শপথ নিই যে, আমরা আমাদের দেশকে একটি সমৃদ্ধ ও উন্নত দেশে পরিণত করব।

জয় বাংলা!

আপনার বন্ধু, [আপনার নাম]

[ছবি]

(উপরে একটি বিজয় দিবসের ছবি যুক্ত করা হয়েছে।)

আপনি এই কার্ডটিকে আপনার ইচ্ছামতো পরিবর্তন করতে পারেন। আপনি কার্ডের রং, ডিজাইন বা শুভেচ্ছা বাণী পরিবর্তন করতে পারেন। আপনি কার্ডের উপর কিছু স্টিকার বা টেপও ব্যবহার করতে পারেন।

১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস বক্তব্য

মহান বিজয় দিবসের বক্তব্য – ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের ছবি

প্রিয় দেশবাসী,

আজ ১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানি হানাদারদের বিরুদ্ধে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয়। আজকের এই দিনে আমরা আমাদের স্বাধীনতাকে গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করি।

মহান মুক্তিযুদ্ধে অগণিত বীর মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা অর্জন করেছি আমাদের স্বাধীনতা। তাদের প্রতি আমাদের রয়েছে গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা।

বিজয় দিবস আমাদের জন্য একটি আনন্দের দিন। এই দিন আমরা আমাদের স্বাধীনতার জয় উদযাপন করি। আমরা আমাদের স্বাধীনতাকে টিকিয়ে রাখার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

আরো পড়ুনঃ  ১ কুইন্টাল কত কেজি?

আজকের এই বিজয় দিবসে আমরা সকলে মিলে শপথ নিই যে, আমরা আমাদের দেশকে একটি সমৃদ্ধ ও উন্নত দেশে পরিণত করব।

আমরা আমাদের দেশের গণতন্ত্র ও আইনের শাসনের সুষ্ঠু প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করব।

আমরা আমাদের দেশের মানুষের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নতির জন্য কাজ করব।

আমরা আমাদের দেশের মানুষের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ ও সম্প্রীতির বন্ধনকে আরও দৃঢ় করব।

জয় বাংলা!

জয় বঙ্গবন্ধু!

[ছবি]

(উপরে জাতীয় স্মৃতিসৌধের একটি ছবি যুক্ত করা হয়েছে।)

উপসংহার

আমি আশা করছি আপনারা আপনাদের এই প্রশ্নের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসের ছবি উওর পেয়েছেন। আরো কিছু জানার থাকলে নিচে কমেন্ট করুন। ধন্যবাদ।

আরো পড়ুনঃ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস সম্পর্কে কিছু কথা

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top