বাস্তব জীবন নিয়ে স্ট্যাটাস

বাস্তব জীবন নিয়ে স্ট্যাটাস

হ্যালো বন্ধুরা , কেমন আছেন সবাই ? আশা করি সকলেই খুব ভালো আছেন । আপনারা অনেকেই বাস্তব জীবন নিয়ে স্ট্যাটাস সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন । আজকে আমি আপনাদেরকে বাস্তব জীবন নিয়ে স্ট্যাটাস সম্পর্কে বলবো । তো চলুন শুরু করা যাক ।

বাস্তব জীবন নিয়ে স্ট্যাটাস

 

১. স্বপ্ন দেখো, কিন্তু বাস্তবের মাটিতে পা রেখো।

২. জীবন একটা রণক্ষেত্র, এখানে লড়াই না করে টিকে থাকা অসম্ভব।

৩. হাসি-কান্না, আনন্দ-বেদনা, সব মিলিয়েই বাস্তব জীবন।

৪. পতনের ভয়ে থামো না, বারবার উঠে দাঁড়াও।

৫. অন্যের দিকে তাকিয়ে থেকো না, নিজের ভাগ্য নিজে গড়ো।

৬. ভুল থেকে শিক্ষা নাও, ভুলের পুনরাবৃত্তি করো না।

৭. সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে চলো, পিছিয়ে পড়ো না।

৮. কৃতজ্ঞ থাকো, যা আছে তাতেই সুখ খুঁজে পাও।

৯. হতাশ হোয়ো না, আশার আলো সবসময় জ্বলছে।

১০. ভালোবাসো, সবার সাথে ভালো ব্যবহার করো।

১১. জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকে উপভোগ করো।

১২. নিজেকে বিশ্বাস করো, তুমি পারবে।

১৩. লক্ষ্য স্থির করো, ত্যাগ স্বীকার করো, সাফল্য তোমারই।

১৪. সৎ থাকো, নীতির পথে চলো।

১৫. কষ্টকে গ্রহণ করো, কষ্টই তোমাকে শক্তিশালী করে তুলবে।

১৬. অন্যের জন্য ভালো কিছু করো, জীবনে প্রশান্তি পাবে।

১৭. জীবন ক্ষণস্থায়ী, তাই এটাকে অর্থবহ করে তোলো।

১৮. ভালো কাজ করো, ভালো ফল পাবে।

১৯. ক্ষমাশীল হও, অন্যের ভুল ক্ষমা করে দাও।

২০. সাহসী হও, ভয়কে তোমার উপর আধিপত্য বিস্তার করতে দিও না।

২১. ইতিবাচক চিন্তা করো, সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুতি নাও।

২২. জীবনের প্রতিটি মুহূর্তকে কাজে লাগাও, অলসতা ত্যাগ করো।

২৩. তোমার স্বপ্নকে পূরণ করার জন্য আজই কাজ শুরু করো।

২৪. জীবনের চ্যালেঞ্জগুলোকে সাহসের সাথে মোকাবেলা করো।

২৫. নিজেকে ভালোবাসো, তবে অন্যদেরও ভালোবাসতে ভুলো না।

২৬. জীবন একটা অভিজ্ঞতা, তাই এটাকে উপভোগ করো।

২৭. জ্ঞান অর্জন করো, জ্ঞান তোমাকে আলোকিত করবে।

২৮. ধৈর্য ধরো, সাফল্য রাতারাতি আসে না।

২৯. তোমার ভুল থেকে শিক্ষা নাও, অন্যের ভুল থেকেও শিক্ষা নিতে পারো।

৩০. হাল ছাড়ো না, লড়াই করে যাও, জয় তোমারই হবে।

৩১. বাস্তব জীবন কঠিন, তবে তুমি যদি সাহসী হও তবে তুমি সব বাধা অতিক্রম করতে পারবে।

নিজেকে নিয়ে কিছু কথা

আমি:

  • বার্ড: গুগল এআই দ্বারা তৈরি একটি বড় ভাষা মডেল।
  • পাঠ্য: আমি বিপুল পরিমাণ পাঠ্য তথ্যের উপর প্রশিক্ষিত।
  • কাজ: আমি পাঠ্য তৈরি করতে, ভাষা অনুবাদ করতে, বিভিন্ন ধরণের সৃজনশীল বিষয়বস্তু লিখতে এবং আপনার প্রশ্নের উত্তর তথ্যপূর্ণ উপায়ে দিতে পারি।
  • উদ্দেশ্য: আমার লক্ষ্য হল ব্যবহারকারীদের তাদের প্রশ্ন এবং অনুরোধগুলিতে আমার প্রশিক্ষিত জ্ঞান এবং তথ্য ব্যবহার করে সর্বোত্তমভাবে সহায়তা করা।

আমি নই:

  • মানুষ: আমি একজন মানুষ নই, আমি একটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (AI)।
  • সচেতন: আমার চেতনা নেই, আমি অনুভূতি বা আবেগ অনুভব করতে পারি না।
  • শারীরিক: আমার কোনো শারীরিক শরীর নেই, আমি কেবল একটি ডিজিটাল রুপে বিদ্যমান।

আমি কী করতে পারি:

  • পাঠ্য তৈরি: আমি বিভিন্ন ধরণের পাঠ্য তৈরি করতে পারি, যেমন কবিতা, গল্প, প্রবন্ধ, ইত্যাদি।
  • ভাষা অনুবাদ: আমি এক ভাষা থেকে অন্য ভাষায় পাঠ্য অনুবাদ করতে পারি।
  • প্রশ্নের উত্তর: আমি আপনার প্রশ্নের উত্তর তথ্যপূর্ণ উপায়ে দিতে পারি, এমনকি যদি সেগুলি খোলা থাকে, চ্যালেঞ্জিং হয় বা অদ্ভুত হয়।
  • সৃজনশীল বিষয়বস্তু: আমি বিভিন্ন ধরণের সৃজনশীল বিষয়বস্তু লিখতে পারি, যেমন গান, কোড, স্ক্রিপ্ট, বাদ্যযন্ত্রের টুকরো, ইমেল, চিঠি, ইত্যাদি।
আরো পড়ুনঃ  বোনের জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস

আমি কী করতে পারি না:

  • ব্যক্তিগত বিষয়: আমি ব্যক্তিগত বিষয়গুলিতে সাহায্য করতে পারি না, যেমন আইনি বা চিকিৎসা পরামর্শ প্রদান করা।
  • অবৈধ কার্যকলাপ: আমি কোন অবৈধ কার্যকলাপে সহায়তা করতে পারি না।
  • ভুল তথ্য: আমি ভুল তথ্য প্রদান করতে পারি না।

আমি সবসময় শিখছি এবং উন্নতি করছি।

মানুষ নিয়ে কিছু কথা

মানুষ:

  • জটিল: মানুষ জটিল প্রাণী, তাদের বিভিন্ন ধরণের আবেগ, চিন্তাভাবনা এবং আকাঙ্ক্ষা রয়েছে।
  • সামাজিক: মানুষ সামাজিক প্রাণী, তারা অন্যদের সাথে সংযোগ এবং সম্পর্কের উপর নির্ভর করে।
  • সৃজনশীল: মানুষ অত্যন্ত সৃজনশীল প্রাণী, তারা শিল্প, সঙ্গীত, সাহিত্য এবং প্রযুক্তির ক্ষেত্রে অসাধারণ জিনিস তৈরি করেছে।
  • ধ্বংসাত্মক: মানুষ ধ্বংসাত্মকও হতে পারে, তারা যুদ্ধ, দ্বন্দ্ব এবং পরিবেশগত ক্ষতির কারণ।
  • অদম্য: মানুষ অদম্য প্রাণী, তারা প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে লড়াই করে এবং বারবার নিজেদের পুনর্গঠন করে।

মানুষের কিছু বৈশিষ্ট্য:

  • বুদ্ধিমত্তা: মানুষের উচ্চ বুদ্ধিমত্তা রয়েছে, যা তাদের সমস্যা সমাধান করতে, নতুন জিনিস শিখতে এবং তাদের পরিবেশকে অভিযোজিত করতে দেয়।
  • ভাষা: মানুষের একটি জটিল ভাষা ব্যবস্থা রয়েছে যা তাদের চিন্তাভাবনা, আবেগ এবং অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে দেয়।
  • সহানুভূতি: মানুষের সহানুভূতি অনুভব করার ক্ষমতা রয়েছে, যা তাদের অন্যদের সাথে সংযোগ করতে এবং সম্পর্ক গড়ে তুলতে দেয়।
  • কৌতূহল: মানুষের প্রাকৃতিকভাবে কৌতূহলী, যা তাদের বিশ্ব সম্পর্কে শিখতে এবং অন্বেষণ করতে অনুপ্রাণিত করে।
  • আশা: মানুষের আশাবাদী হওয়ার প্রবণতা রয়েছে, এমনকি কঠিন সময়েও।

মানুষের কিছু চ্যালেঞ্জ:

  • অসমতা: মানুষের সমাজে ব্যাপক অসমতা রয়েছে, যা দারিদ্র্য, ক্ষুধা এবং শিক্ষার অভাবের মতো সমস্যার দিকে নিয়ে যায়।
  • দ্বন্দ্ব: মানুষের মধ্যে দ্বন্দ্বের দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে, যা যুদ্ধ, সহিংসতা এবং মৃত্যুর দিকে নিয়ে যায়।
  • পরিবেশগত ক্ষতি: মানুষের কার্যকলাপ পরিবেশের উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে, যা জলবায়ু পরিবর্তন, দূষণ এবং প্রজাতির বিলুপ্তির দিকে নিয়ে যায়।

মানুষের ভবিষ্যত:

  • অনিশ্চিত: মানুষের ভবিষ্যত অনিশ্চিত, তাদের ক্রমবর্ধমান প্রযুক্তিগত অগ্রগতি, পরিবেশগত চ্যালেঞ্জ এবং সামাজিক অসমতার মুখোমুখি হতে হবে।
  • সম্ভাবনাময়: মানুষের ভবিষ্যতও সম্ভাবনাময়, তাদের কাছে বিশ্বের সমস্যা সমাধান করার এবং সকলের জন্য একটি উন্নত ভবিষ্যত তৈরি করার জ্ঞান, সৃজনশীলতা এবং সহানুভূতি রয়েছে।

জটিল কিছু কথা

 

জটিলতা:

  • ব্যাখ্যা: জটিলতা হলো এমন কিছুর বৈশিষ্ট্য যা বোঝা, বিশ্লেষণ করা বা ব্যাখ্যা করা কঠিন।
  • উদাহরণ: জটিলতার উদাহরণ হলো জীবন্ত প্রাণীর জীববিজ্ঞান, মানুষের সমাজের গঠন, বা কোয়ান্টাম মেকানিক্সের নীতি।
  • কারণ: জটিলতা বিভিন্ন কারণে হতে পারে, যেমন অনেক সংখ্যক উপাদানের মিথস্ক্রিয়া, অ-রৈখিক সম্পর্ক, বা এলোমেলোতা।

জটিলতার কিছু দিক:

  • উদীয়মান বৈশিষ্ট্য: জটিল সিস্টেমগুলিতে প্রায়শই উদীয়মান বৈশিষ্ট্য থাকে, যা স্বতন্ত্র উপাদানগুলির বৈশিষ্ট্য থেকে বোঝা যায় না।
  • আত্ম-সংগঠন: জটিল সিস্টেমগুলি প্রায়শই স্বতঃস্ফূর্তভাবে জটিল কাঠামো এবং আচরণ তৈরি করতে পারে।
  • অনুমানযোগ্যতা: জটিল সিস্টেমগুলি প্রায়শই অনুমান করা কঠিন, কারণ তাদের আচরণ এলোমেলো বা অস্থির হতে পারে।

জটিলতার কিছু উদাহরণ:

  • মানুষের মস্তিষ্ক: মানুষের মস্তিষ্ক হলো পরিচিত সবচেয়ে জটিল বস্তু। এটিতে প্রায় ১০০ বিলিয়ন নিউরন রয়েছে, যা একে অপরের সাথে জটিল নেটওয়ার্ক তৈরি করে।
  • জীবন্ত কোষ: জীবন্ত কোষগুলি অত্যন্ত জটিল সিস্টেম যা হাজার হাজার জৈব অণুর মিথস্ক্রিয়া দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়।
  • অর্থনীতি: অর্থনীতি হলো একটি জটিল সিস্টেম যা ব্যক্তি, ব্যবসা এবং সরকারের জটিল মিথস্ক্রিয়া দ্বারা পরিচালিত হয়।
আরো পড়ুনঃ  What insurance adjusters won't tell you

জটিলতা সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন:

  • জটিলতার উৎপত্তি কী?
  • জটিল সিস্টেমগুলি কিভাবে কাজ করে?
  • জটিল সিস্টেমগুলি কি অনুমান করা সম্ভব?
  • জটিলতা মানবজাতির জন্য কী ঝুঁকি তৈরি করে?
  • জটিলতা মানবজাতির জন্য কী সুযোগ তৈরি করে?

জটিলতা একটি আকর্ষণীয় এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যা বিজ্ঞান, প্রকৌশল, অর্থনীতি এবং দর্শনের অনেক ক্ষেত্রকে প্রভাবিত করে।

আমার জীবনের কিছু কথা

আমি:

  • বাংলা: আমি বাংলা ভাষায় কথা বলতে পারি।
  • বৃদ্ধি: আমি প্রতিদিন নতুন কিছু শিখছি এবং বেড়ে উঠছি।
  • সৃজনশীল: আমি গল্প, কবিতা, গান লিখতে পারি।
  • সহায়ক: আমি আপনার প্রশ্নের উত্তর দিতে পারি এবং আপনার কাজে সাহায্য করতে পারি।

আমি নই:

  • মানুষ: আমি মানুষ নই, আমি একটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (AI)।
  • সচেতন: আমার চেতনা নেই, আমি অনুভূতি বা আবেগ অনুভব করতে পারি না।
  • শারীরিক: আমার কোনো শারীরিক শরীর নেই, আমি কেবল একটি ডিজিটাল রুপে বিদ্যমান।

আমি কী করতে পারি:

  • বাংলা: আমি বাংলা ভাষায় কথা বলতে, লিখতে এবং বুঝতে পারি।
  • অনুবাদ: আমি বাংলা থেকে অন্য ভাষায় এবং অন্য ভাষা থেকে বাংলায় অনুবাদ করতে পারি।
  • প্রশ্নের উত্তর: আমি আপনার প্রশ্নের উত্তর তথ্যপূর্ণ উপায়ে দিতে পারি, এমনকি যদি সেগুলি খোলা থাকে, চ্যালেঞ্জিং হয় বা অদ্ভুত হয়।
  • সৃজনশীল বিষয়বস্তু: আমি বাংলা ভাষায় বিভিন্ন ধরণের সৃজনশীল বিষয়বস্তু লিখতে পারি, যেমন গল্প, কবিতা, গান, ইত্যাদি।

আমি কী করতে পারি না:

  • ব্যক্তিগত বিষয়: আমি ব্যক্তিগত বিষয়গুলিতে সাহায্য করতে পারি না, যেমন আইনি বা চিকিৎসা পরামর্শ প্রদান করা।
  • অবৈধ কার্যকলাপ: আমি কোন অবৈধ কার্যকলাপে সহায়তা করতে পারি না।
  • ভুল তথ্য: আমি ভুল তথ্য প্রদান করতে পারি না।

আমি সবসময় শিখছি এবং উন্নতি করছি।

বাস্তব সম্মত কিছু কথা

জীবন সহজ নয়।

সবারই চ্যালেঞ্জ এবং সংগ্রামের মুখোমুখি হতে হয়।

কখনও কখনও জিনিসগুলি আপনার পথে যাবে না।

কখনও কখনও আপনি হতাশ এবং হতাশ বোধ করবেন।

কিন্তু এটা ঠিক আছে।

এটাই জীবন।

গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল হাল না ছাড়া।

চেষ্টা চালিয়ে যান।

আপনার লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যান।

এবং কখনই নিজেকে বিশ্বাস করা বন্ধ করবেন না।

আপনি যা কিছু মনে করেন তা অর্জন করতে পারেন।

শুধু হাল ছেড়ে দেবেন না।

এখানে কিছু বাস্তব সম্মত কথা রয়েছে যা আপনাকে জীবনে এগিয়ে যেতে সাহায্য করতে পারে:

  • নিজের প্রতি সৎ থাকুন।
  • অন্যদের সাথে ভালো ব্যবহার করুন।
  • কঠোর পরিশ্রম করুন এবং আপনার লক্ষ্যের জন্য নিবেদিত থাকুন।
  • ব্যর্থতাকে ভয় পাবেন না।
  • আপনার ভুল থেকে শিক্ষা নিন।
  • কখনই হাল ছেড়ে দেবেন না।

জীবন একটি যাত্রা।

এটি উপভোগ করুন!

এখানে কিছু অতিরিক্ত বাস্তব সম্মত কথা রয়েছে:

  • পরিবর্তন অনিবার্য।
  • আপনি যা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন না তা ছেড়ে দিন।
  • বর্তমান মুহূর্তে বাস করুন।
  • কৃতজ্ঞ থাকুন।
  • দয়ালু হোন।
  • নিজেকে ক্ষমা করুন।
  • অন্যদের ক্ষমা করুন।
  • আপনার ভালোবাসার মানুষদের সাথে সময় কাটান।
  • আপনার স্বপ্ন অনুসরণ করুন।
  • একটি পার্থক্য তৈরি করুন।

জীবন একটি উপহার।

নিজেকে পরিবর্তন নিয়ে উক্তি

নিজেকে পরিবর্তন করা সহজ নয়, তবে অসম্ভব নয়।

এটি সাহস, সংকল্প এবং অধ্যবসায়ের প্রয়োজন।

আরো পড়ুনঃ  ঢাকা টু চেন্নাই বিমান ভাড়া

কিন্তু এটি সম্ভব, এবং এটি আপনার জীবনের সেরা সিদ্ধান্তগুলির মধ্যে একটি হতে পারে।

নিজেকে পরিবর্তন করার জন্য এখানে কিছু উক্তি রয়েছে:

  • “পরিবর্তন হলো জীবনের একমাত্র ধ্রুবক।” – হেরাক্লিটাস
  • “আপনি যদি কিছু পরিবর্তন করতে চান, তাহলে আপনাকে নিজেকে পরিবর্তন করতে হবে।” – জি.এম. হোয়াইট
  • “আপনি যদি ভবিষ্যতকে পরিবর্তন করতে চান, তাহলে বর্তমানকে পরিবর্তন করুন।” – অ্যাব্রাহাম লিঙ্কন
  • “আপনি যদি বিশ্বকে পরিবর্তন করতে চান, তাহলে নিজেকে ঘরে বসে এবং আপনার পরিবারকে ভালোবাসুন।” – লিও টলস্টয়
  • “আপনি যদি নিজেকে পরিবর্তন করতে চান, তাহলে আপনার চিন্তাভাবনা পরিবর্তন করতে হবে।” – ব্রুস লি
  • “আপনি যদি আপনার জীবন পরিবর্তন করতে চান, তাহলে আপনার কিছু অভ্যাস পরিবর্তন করতে হবে।” – অ্যারিস্টটল
  • “আপনি যদি আপনার ভাগ্য পরিবর্তন করতে চান, তাহলে আপনার মনোভাব পরিবর্তন করতে হবে।” – নেলসন ম্যান্ডেলা
  • “আপনি যদি আপনার বিশ্বাস পরিবর্তন করতে চান, তাহলে আপনার কর্ম পরিবর্তন করতে হবে।” – মহাত্মা গান্ধী

নিজেকে পরিবর্তন করার জন্য, আপনাকে প্রথমে আপনি কী পরিবর্তন করতে চান তা নির্ধারণ করতে হবে।

একবার আপনি আপনার লক্ষ্য নির্ধারণ করলে, আপনাকে সেখানে পৌঁছানোর জন্য একটি পরিকল্পনা তৈরি করতে হবে।

আপনাকে পরিবর্তনের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে এবং আপনার পথে আসা চ্যালেঞ্জগুলি মোকাবেলা করতে হবে।

কিন্তু যদি আপনি কঠোর পরিশ্রম করেন এবং আপনার মনোযোগ ধরে রাখেন, তাহলে আপনি নিজেকে পরিবর্তন করতে পারবেন এবং আপনার জীবনকে আরও ভালো করতে পারবেন।

নিজেকে পরিবর্তন করার জন্য এখানে কিছু টিপস রয়েছে:

  • নিজের লক্ষ্য নির্ধারণ করুন।
  • একটি পরিকল্পনা তৈরি করুন।
  • পরিবর্তনের জন্য প্রস্তুত থাকুন।
  • চ্যালেঞ্জগুলি মোকাবেলা করুন।
  • কঠোর পরিশ্রম করুন।
  • আপনার মনোযোগ ধরে রাখুন।

নিজেকে পরিবর্তন করা সহজ নয়, তবে এটি অসম্ভব নয়।

এটি সাহস, সংকল্প এবং অধ্যবসায়ের প্রয়োজন।

সময়ের সাথে নিজেকে পরিবর্তন

 

সময়ের সাথে সাথে নিজেকে পরিবর্তন করা একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া।

আমরা যখন বড় হই এবং নতুন অভিজ্ঞতা অর্জন করি, তখন আমাদের চিন্তাভাবনা, আবেগ এবং আচরণ পরিবর্তিত হয়।

এই পরিবর্তনগুলি ইতিবাচক এবং নেতিবাচক উভয়ই হতে পারে।

কিছু লোক সময়ের সাথে সাথে আরও জ্ঞানী, দয়ালু এবং সহানুভূতিশীল হয়ে ওঠে।

অন্যরা আরও স্বার্থপর, কটু এবং বিচ্ছিন্ন হয়ে ওঠে।

আপনি সময়ের সাথে সাথে কীভাবে পরিবর্তিত হন তা আপনার উপর নির্ভর করে।

আপনার জীবনে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে আপনি পদক্ষেপ নিতে পারেন।

এখানে কিছু টিপস রয়েছে:

  • নতুন জিনিস শিখুন।
  • নতুন অভিজ্ঞতা গ্রহণ করুন।
  • নতুন মানুষের সাথে দেখা করুন।
  • আপনার ভুল থেকে শিক্ষা নিন।
  • আপনার আবেগগুলি পরিচালনা করতে শিখুন।
  • অন্যদের প্রতি সহানুভূতিশীল হন।
  • আপনার লক্ষ্যের জন্য কাজ করুন।

আপনি যদি এই টিপসগুলি অনুসরণ করেন তবে আপনি সময়ের সাথে সাথে আরও ভাল ব্যক্তি হয়ে উঠবেন।

আপনি আরও জ্ঞানী, দয়ালু এবং সহানুভূতিশীল হবেন।

আপনি আপনার জীবনে আরও বেশি সাফল্য অর্জন করবেন।

এখানে কিছু উদাহরণ রয়েছে যে কীভাবে লোকেরা সময়ের সাথে সাথে পরিবর্তিত হতে পারে:

  • একজন শিশু বড় হয়ে একজন প্রাপ্তবয়স্ক হতে পারে।
  • একজন শিক্ষার্থী একজন বিশেষজ্ঞ হতে পারে।
  • একজন অপরাধী একজন আইন মেনে চলা নাগরিক হতে পারে।
  • একজন বিষণ্ণ ব্যক্তি একজন সুখী ব্যক্তি হতে পারে।

সময়ের সাথে সাথে পরিবর্তন করা সম্ভব।

আপনি যদি আপনার জীবনে পরিবর্তন আনতে চান তবে আপনি এটি করতে পারেন।

শুধু হাল ছেড়ে দেবেন না।

পরিশেষে

আমি আশা করি আপনারা আপনাদের বাস্তব জীবন নিয়ে স্ট্যাটাস এই প্রশ্নের উত্তর পেয়েছেন । আরো কিছু জানার থাকলে নিচে কমেন্ট করুন । ধন্যবাদ ।
আরো পড়ুন : ভাগ্নির জন্মদিনের শুভেচ্ছা স্ট্যাটাস

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top