বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

https://jobbd.org/?p=883

বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম ডা. দীপু মনি। তিনি ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি থেকে এই পদে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন রাজনীতিবিদ এবং চাঁদপুর-৩ (চাঁদপুর-হাইমচর) আসনের সংসদ সদস্য।

দীপু মনি একজন চিকিৎসক এবং আইনজীবী। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস এবং বাংলাদেশ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব পাবলিক হেলথ থেকে এমপিএইচ ডিগ্রি অর্জন করেন।

দীপু মনি ১৯৬৫ সালের ৮ ডিসেম্বর চাঁদপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৯১ সালে চাঁদপুর মহকুমা পরিষদের শিক্ষা ও স্বাস্থ্য বিভাগের সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৯৬ সালে চাঁদপুর-৩ আসন থেকে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ২০০১, ২০০৮, ২০১৪ এবং ২০১৮ সালের নির্বাচনেও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

দীপু মনি ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ২০১৪ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

দীপু মনি একজন দক্ষ এবং অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ। তিনি বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন।বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

বাংলাদেশের ১ম শিক্ষামন্ত্রী কে?

বাংলাদেশের ১ম শিক্ষামন্ত্রী হলেন এম ইউসুফ আলী। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। তিনি ১৯৭১ সালের ২৯ ডিসেম্বর থেকে ১৯৭৩ সালের ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন।

এম ইউসুফ আলী ১৯৩১ সালের ৩১ জানুয়ারি ফরিদপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ১৯৫৮ সালে পাকিস্তান সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে যোগদান করেন এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন।বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

স্বাধীনতার পর তিনি বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রথম শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তিনি শিক্ষা ব্যবস্থার পুনর্গঠন এবং উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তিনি শিক্ষার মান বাড়াতে এবং শিক্ষার সুযোগ বৃদ্ধিতে কাজ করেন।

আরো পড়ুনঃ  বাংলাদেশ ব্যাংকের বর্তমান গভর্নর কে

এম ইউসুফ আলী একজন যোগ্য এবং দক্ষ শিক্ষাবিদ ছিলেন। তিনি শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন।

বর্তমানে বাংলাদেশের নারী মন্ত্রীর সংখ্যা কত?

 বাংলাদেশের নারী মন্ত্রীর সংখ্যা ১০ জন। তারা হলেন:

  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
  • স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী
  • উপপ্রধানমন্ত্রী এবং অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল
  • স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক
  • বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী
  • কৃষি মন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাক
  • পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন
  • শিল্প মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার
  • বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা

এছাড়াও, জাতীয় সংসদের ৩০০ জন সদস্যের মধ্যে ১০৮ জন নারী। এর মধ্যে ১০৩ জন সদস্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের এবং ৫ জন সদস্য বিএনপির।বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

বাংলাদেশের নারী মন্ত্রীদের সংখ্যা বিশ্বের অন্যতম উচ্চ। তবে, নারী মন্ত্রীদের সংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি তাদের অধিকার ও ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রে আরও অনেক কাজ করার আছে।

অর্থ মন্ত্রীর নাম কি?

বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রীর নাম হল আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন রাজনীতিবিদ এবং বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের একজন সদস্য। তিনি ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি থেকে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন।

আ হ ম মুস্তফা কামাল ১৯৪৭ সালের ১৫ জুন কুমিল্লা জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনে স্নাতক এবং এমবিএ ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ১৯৮৪ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে যোগদান করেন এবং ১৯৯১ সালে কুমিল্লা-১০ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ২০০৮ সালে পুনরায় নির্বাচিত হন এবং ২০১৪ সালে পরিকল্পনামন্ত্রীর দায়িত্ব পান।বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

আ হ ম মুস্তফা কামাল একজন অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ এবং অর্থনীতিবিদ। তিনি অর্থনীতির বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। তিনি বাংলাদেশের অর্থনীতির উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী কে?

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী হলেন মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন রাজনীতিবিদ এবং বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের একজন সদস্য। তিনি ২০২২ সালের ০২ নভেম্বর থেকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন।বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

আরো পড়ুনঃ  ব্রাজিল নেক্সট ম্যাচ

মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী ১৯৬৫ সালের ৩১ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম মহানগরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক এবং এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে যোগদান করেন এবং ২০০৮ সালে চট্টগ্রাম-৬ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ২০১৪ সালে পুনরায় নির্বাচিত হন।

মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী একজন অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ। তিনি জনপ্রশাসন ব্যবস্থার উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। তিনি জনপ্রশাসের দক্ষতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধিতে কাজ করছেন।

বাংলাদেশের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর নাম কি

বাংলাদেশের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর নাম হল কাজী কেরামত আলী। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন রাজনীতিবিদ এবং বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের একজন সদস্য। তিনি ২০২৩ সালের ০৭ জানুয়ারি থেকে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন।

কাজী কেরামত আলী ১৯৬২ সালের ২৫ ডিসেম্বর রাজবাড়ী জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনে স্নাতক এবং এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে যোগদান করেন এবং ২০১৮ সালে রাজবাড়ী-১ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

কাজী কেরামত আলী একজন অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ। তিনি শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর ধর্ম কি

বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রীর নাম হল দীপু মনি। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন রাজনীতিবিদ এবং বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের একজন সদস্য। তিনি ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি থেকে শিক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন।

দীপু মনির জন্মস্থান চাঁদপুর জেলা। তিনি মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম মোহাম্মদ আলী এবং মায়ের নাম মোছাম্মৎ আছিয়া। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস এবং বাংলাদেশ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেন।বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

দীপু মনি একজন ধর্মপ্রাণ মুসলিম। তিনি নিয়মিত নামাজ পড়েন এবং ইসলামের শিক্ষা অনুসরণ করেন। তিনি বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা নীতিতে ধর্মের গুরুত্বকে গুরুত্ব দেন। তিনি শিক্ষা ব্যবস্থায় ইসলামী শিক্ষার প্রচার ও প্রসারেও কাজ করছেন।

সুতরাং, বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রীর ধর্ম হল ইসলাম

সাবেক শিক্ষা মন্ত্রী

বাংলাদেশের সাবেক শিক্ষামন্ত্রীদের তালিকা

  • অধ্যাপক এম ইউসুফ আলী (১৯৭২-১৯৭৫)
  • ড. মোজাফফর আহমদ চৌধুরী (১৯৭৫)
  • মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান (১৯৭৫)
  • জনাব আবুল ফজল (১৯৭৫-১৯৭৭)
  • সৈয়দ আলী আহসান (১৯৭৭-১৯৭৮)
  • কাজী জাফর আহমদ (১৯৭৮-১৯৭৯)
  • শাহ্ মোহাম্মদ আজিজুর রহমান (১৯৭৯-১৯৮২)
  • জনাব তাফাজ্জল হুসেন খান (১৯৮২)
  • ড. এ মজিদ খান (১৯৮২-১৯৮৩)
  • জনাব শামছুল হুদা চৌধুরী (১৯৮৩-১৯৮৫)
  • ডা. এম এ মতিন (১৯৮৫-১৯৮৬)
  • বিচারপতি এ কে এম নুরুল ইসলাম (১৯৮৬)
  • ডা. এম এ মতিন (১৯৮৬-১৯৮৭)
  • জনাব মোমিনউদ্দিন আহমেদ (১৯৮৭-১৯৮৮)
  • জনাব মাহবুবুর রহমান (১৯৮৮-১৯৯০)
  • শেখ শহীদুল ইসলাম (১৯৯০-১৯৯১)
  • প্রফেসর জিল্লুর রহমান সিদ্দিকী (১৯৯১-১৯৯২)
  • ডাঃ এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী (১৯৯২-১৯৯৩)
  • বৃহত্তর নোয়াখালীর শেখ ফজলল করিম মজুমদার (১৯৯৩-১৯৯৬)
  • নুরুল ইসলাম নাহিদ (২০০৯-২০১৯)
  • দীপু মনি (২০১৯-বর্তমান)
আরো পড়ুনঃ  ২০২৩ সালে আর্জেন্টিনার ম্যাচ

বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি ২০১৯ সালের ৭ জানুয়ারি থেকে দায়িত্ব পালন করছেন।বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

সাবেক আইন মন্ত্রীদের তালিকা

বাংলাদেশের সাবেক আইন মন্ত্রীদের তালিকা

  • টি এইচ খান (১৯৭২-১৯৭৫)
  • মির্জা গোলাম হাফিজ (১৯৯১-১৯৯৬)
  • জমির উদ্দিন সরকার (১৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৬ – জুন ১৯৯৬)
  • আব্দুল মতিন খসরু (১৯৯৬-২০০১)
  • মওদুদ আহমেদ (২০০১-২০০৬)
  • শফিক আহমেদ (২০০৯-২০১৪)
  • আনিসুল হক (২০১৪-বর্তমান)

বর্তমান আইন মন্ত্রী আনিসুল হক ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি থেকে দায়িত্ব পালন করছেন।

টি এইচ খান ১৯৭২ সালের ১২ জানুয়ারি থেকে ১৯৭৫ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশের আইন মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নর ছিলেন।বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

মির্জা গোলাম হাফিজ ১৯৯১ সালের ১২ এপ্রিল থেকে ১৯৯৬ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত বাংলাদেশের আইন মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) একজন রাজনীতিবিদ।

জমির উদ্দিন সরকার ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৯৯৬ সালের জুন পর্যন্ত বাংলাদেশের আইন মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন রাজনীতিবিদ।

আব্দুল মতিন খসরু ১৯৯৬ সালের ১২ জুলাই থেকে ২০০১ সালের ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত বাংলাদেশের আইন মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) একজন রাজনীতিবিদ।

মওদুদ আহমেদ ২০০১ সালের ১০ নভেম্বর থেকে ২০০৬ সালের ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত বাংলাদেশের আইন মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) একজন রাজনীতিবিদ।

শফিক আহমেদ ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি থেকে ২০১৪ সালের ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত বাংলাদেশের আইন মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন রাজনীতিবিদ।

আনিসুল হক ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি থেকে বাংলাদেশের আইন মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন রাজনীতিবিদ।বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রীর নাম কি

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top